শরীরের ১০টি লক্ষন যা আমাদের গুরুত্বের সাথে নেওয়া উচিৎ

07/10/2017

আমাদের শরীর হলো আনেক জটিল একটি মেশিন।যেমন যে কোন বাস্তববুদ্ধিসম্পন্ন মেশিন তার অপর পক্ষকে তার ডাটা প্রদান করে তেমনি মানুষের ভেতরকার বিভিন্ন ইন্দ্রিয়গুলো তাদের মধ্য ডাটা প্রদান করে।আমরা আমাদের শরীরের বিভিন্ন বিষয়কে খেয়াল করিনা যেটি মোটেও ঠিক নয়।

১.চোখের নিচে কালো দাগ: আপনার সঠিক ঘুম না হওয়ার কারনে আপনার চোখের নিচে কালো দাগ হতে পারে।ডাক্তার বলেন একজন সুস্থ মানুষকে ৭-৮ ঘন্টা ঘুম এর প্রয়োজন।যখন রক্তশূন্যতা বা ব্লাডসেল তৈরী হয় না তখন এসকল সমস্যা দেখা যায়।

২.আপনি যদি আপনার হাতের আঙ্গুল এর রং পাল্টে যেতে দেখেন তাহলে এটি হালকাভাবে নেবেন না কারন এটি একটি মারাত্মক সমস্যা।এটি রেনাউড এর রোগের লক্ষণ।আপনার শরীরের তাপমাত্রা কম বা ব্লাড ভেসেল এর কম তৈরী এর কারন হতে পারে।

৩.ঝাপসা দেখা: আপনার চোখ যদি ক্লান্ত অনুভব আরও দূর এর কাউকে শনাক্ত করতে না পারে এছাড়া কোন কছু পড়া বা দেখা দেখতে সমস্যা অনুভব হয় তাহলে আপনার চোখের বিভিন্ন ও মারাত্মক সমস্যা হতে পারে।আপনার অবশ্যয় একজন চোখের চিকিৎসক এর কাছে যাওয়া উচিৎ।

৪.চোখের পাশে ছোপ ছোপ দাগ: এই চোখের পাশে ছোপ ছোপ দাগ বিভিন্ন রকম হতে পারে কোনটি গোল আবার কোনটি সোজা দাগ এর মতো।আপনার চোখের নিচে বা পাশে যদি এটি হঠাত দেখা যায় ও এটি যদি ১-২ সপ্তাহ দেখা যায় তাহালে অবশ্যয় একজন চোখের চিকিৎসক এর কাছে যাওয়া উচিৎ কারন আপনার চোখের জন্য এটি মারাত্মক সমস্যা দেখা দিতে পারে।

৫.পেট বা পাকস্থলী শব্দ হওয়া: পেট বা পাকস্থলীতে শব্দ হওয়ার অনেক কারন হতে পারে।এটি যদি ১-২ দিন লক্ষ করেন তাহলে চিন্তার কোন কারন নেই কিন্তু এটি যদি অনেকদিন ধরে লক্ষ করেন তাহলে আপনার অবশ্যয় একজন সুচিকিৎসক এর কাছে যেতে হবে।

৬.শরীরের খসখসে চিহ্ন: আপনার শরীরের খসখসে চিহ্ন যদি দেখা যাই তাহলে বুঝতে হবে আপনার ব্যাপক পরিমানে ভিটামিন এর অভাব রয়েছে।একটি সুস্হ্য খাবার প্রণালি এর থেকে মুক্তি দিতে পারে।এটি ইনফেকশন এ পরিনত হওয়ার আগে ডাক্তর এর কাছে যাওয়া অবশ্যক।

৭.গন্ধ না পাওয়া: সঠিকভাবে গন্ধ না পাওয়াও একটি বড় ধরনের সমস্যা।হতে পারে অনেক দিনের ঠাণ্ডা লাগা থেকে এটি হয়েছে।এর কারনে আপনার স্নায়ু এর ক্ষতি হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।এজন্য আপনার ডাক্তর এর কাছে যাওয়া অবশ্যক।

৮.চোখের পাতাতে টান অনুভব: চোখের পাতাতে টান অনুভব করা হলো আপনি আপনার চোখ দিয়ে অনেক কাজ করাচ্ছেন।অধিক রাত জাগা কাজ করা থেকে এর সৃষ্টি হতে পারে। এর কারনে আপনার খেয়াল রাখতে হবে ও যদি বেশি সমস্যা হয় তাহলে চিকিৎসক এর কাছে যেতে হবে।

৯.কানের মধ্য টিনটিন শব্দ: অনেকের কানের মধ্য টিনটিন শব্দ হয় যার কারনে অন্যের কথা শুনতে বেশ সমস্যা হয় এর মূলত কারন হতে পারে উচ্চ শব্দ স্হানে কাজ করা।এটি স্থায়ী সমস্যা হওয়ার আগে ডাক্তার এর কাছে যেতে হবে।

১০.কাধের হাড়ে ব্যাথা: অনেকের কাধের হাড়ে ব্যাথা হওয়াত বিভিন্ন কারন থাকতে পারে। কোন কারনে আহত,জন্মগত সমস্যা বা ক্যালসিয়াম এর ঘাটতি এর কারন হতে পারে।ডাক্তার শরণাপন্ন হওয়া এর উত্তম উপায়।

– Tashrif Amin
Techwriter
Healthdesk