প্রযুক্তিবিশ্বে নতুন সংযোজন দ্রুতগতির “Li-Fi”

February 27, 2017

সময় এগিয়ে যাচ্ছে,সেই সাথে বদলে যাচ্ছে মানুষের চিন্তা ধারাও। আবিষ্কৃত নতুন নতুন প্রযুক্তিগুলো জীবনযাত্রাকে নিয়ে যাচ্ছে এক নতুন মাত্রায়, করছে আরো দ্রুততর। একইভাবে দ্রুততার সাথে বৃদ্ধি পাচ্ছে তারবিহীনভাবে তথ্য স্থানান্তরিকরন প্রক্রিয়াও। তেমনই এক প্রক্রিয়ার অর্ন্তভুক্ত Li-Fi(Light Fidelity) যা অনেকটা Wi-Fi এর মতোই তবে রেডিও তরঙ্গের পরিবর্তে এতে আলোক তরঙ্গ ব্যবহৃত হচ্ছে ।

2011 সালে জার্মান পদার্থবিদ হারাল্ড হাস তার একটি টেড টক শো এর মধ্য Li-Fi প্রযুক্তির সাথে পরিচিত করিয়ে দেন। যেখানে তিনি বেতার রাউটার হিসাবে লাইট বাল্ব ব্যবহারের একটি রূপরেখা পেশ করেন। পিওরলাইফাই (PureLiFi) নামের একটি প্রতিষ্ঠান এই প্রযুক্তির উদ্ভাবক। ২০১১ সালে প্রথম এর প্রস্তাবনা করা হয়েছিল যা ২০১৫ তে পূর্ণতা পায় । বর্তমানে এস্তোনিয়ার রাজধানী তালিন(Tallinn) এ কয়েকটি ইন্ডাস্ট্রি এবং অফিসে পরিক্ষামূলকভাবে এবং বার্সালোনার(Barcelona) Mobile World Congress এ বানিজ্যিকভাবে Li-Fi ব্যবহৃত হচ্ছে ৷

ওয়াইফাই এবং Lifi মধ্যে মূল পার্থক্য হল, ওয়াইফাই মন্থর গতিতে তথ্য প্রেরণ করে আর Lifi অনেক দ্রুত হারে তথ্য প্রেরণ করার জন্য দৃশ্যমান আলোর মাধ্যমে বেতার তরঙ্গ ব্যবহার করে। ল্যাবরেটরী টেস্টে এসেছে গতিবেগ থাকবে ২২৪ গিগাবিট প্রতি সেকেন্ডে যেখানে Wi-Fi এর সর্বোচ্চ গতিকেও হার মানায় ।তবে অদূর ভবিষ্যতে এর গতি ৫ জিবি/সেকেন্ড হবে বলে ধারনা করা হচ্ছে ।

Wi-Fi তে ব্যবহৃত রেডিও তরঙ্গের ভেদ্যতা বেশি হওয়ায় তা দেওয়াল ভেদ করে বাইরে যেতে সক্ষম,কিন্তু Li-Fi তে আপতিত আলো তা পারে না । ফলে চুরি বা হ্যাকিং থেকে ডাটা থাকে সম্পূর্ণ নিরাপদ ।তাছাড়া নিউক্লিয়ার চুল্লি ,বিমান,হার্ট হাসপাতালের মত জায়গাগুলোতে Li-Fi চালনা করা সম্ভব কারণ এসকল জায়গায় রেডিও তরঙ্গ (Wi-Fi বা মোবাইল নেটওয়ার্ক) মারাত্মক বিপদ বয়ে আনতে পারে।

নিরাপদ,দ্রুত এবং তুলনামূলক সস্তা এই প্রযুক্তি কিছু দিনের মধ্যেই আমাদের মাঝে আসতে চলেছে,যা আমাদের ইন্টারনেট ব্রাউজিং এবং ডাটা ট্রান্সফারিং এর অভিজ্ঞতাকে সম্পূর্ণরূপে বদলে দেবে ।

Prottay Kumar Adhikary
Techwriter