Startup – তুমি কার, কে তোমার?

11/01/2015

দেশে বিদেশে সর্বত্র এখন স্টার্টআপের ধুম। সম্ভাবনাময় ছোট কোম্পানিকে বড় কোম্পানির কিনে নেওয়াই হচ্ছে স্টার্টআপের মূল লক্ষ্য।  ছোট-বড় সব স্টার্ট-আপ প্রতিষ্ঠানকে হরহামেশাই কিনে নিচ্ছে গুগল, ইয়াহু, ফেসবুক, মাইক্রোসফটের মতো সব বড় প্রতিষ্ঠান। আর  এই ঘটনাটি বেশি দেখা যায় Technology world এ। নতুন এবং সম্ভাবনাময় স্টার্ট-আপগুলোর উদ্দেশ্যই থাকে বড়শী মুখে নিয়ে বড় বড় কোম্পানিগুলোর টোপ হয়ে বসে থাকা।

সম্প্রতি ছয় হাজার সাতশ কোটি টাকায় Dell ইএমসিকে কিনে নিয়ে বিশ্বে আলড়ন সৃষ্টি করেছে। Video স্ট্রিমিংয়ের জনপ্রিয় ওয়েবসাইট Youtube আমরা সবাই চিনি। ইউটিউব গুগলের একটি সার্ভিস যা  একসময় একটি স্বতন্ত্র সেবা হিসেবেই যাত্রা শুরু করেছিল। এর সম্ভাবনার কথা মাথায় রেখেই Google একে কিনে নেয়। গত বছর দুয়েক মধ্যে Yahoo এমন স্টার্ট-আপ কিনে নিয়েছে ১৫টিরও বেশি। প্রযুক্তিবিশ্বে ঘটে যাওয়া সবচেয়ে বড় কেনাবেচাগুলো হয়েছে যে Startup গুলোকে কেন্দ্র করে, সেগুলো সম্পর্কে কিছুটা জেনে নেয়া যাক।

Dell কিনে নেয় EMC – সম্প্রতি Dell প্রযুক্তিবিশ্বে সবচেয়ে খরুচে কেনার রেকর্ড গড়েছে । চলতি মাসের অক্টোবরের ১২ তারিখে Dell আনুষ্ঠানিকভাবে জানায়, তারা কিনে নিতে যাচ্ছে ডাটা স্টোরেজ কোম্পানি EMC কে। আর এর জন্য তারা ব্যয় করতে যাচ্ছে ৬৭ বিলিয়ন ডলার বা ছয় হাজার সাতশ কোটি ডলার।

Facebook কিনে নেয় Whatsup – গত বছরের অক্টোবরে Facebook ২২ বিলিয়ন বা দুই হাজার দুইশ কোটি মার্কিন ডলার খরচ করে কিনে নেয় Whatsup। একটি Instant Messaging  একটি অ্যাপের জন্য এরকম বিপুল অংকের অর্থ ফেসবুক খরচ করবে, সেটা অনেকেই ভাবতে পারেনি। ফেসবুকের জন্য এখনও পর্যন্ত এটাই সর্বোচ্চ খরচের কেনার ঘটনা।

HP কিনে নেয় Compac – HP র মূল প্রতিদ্বন্দ্বী IBM টানা দীর্ঘদিন শীর্ষস্থান দখল করে রেখেছিল। এমন সময় আরেক পিসি নির্মাতা কমপ্যাককে কিনে নিয়ে পিসির বাজারে শীর্ষস্থানে উঠে আসে এইচপি। ২০০২ সালে কমপ্যাককে কিনে নিতে ১৮.৬ বিলিয়ন ডলার বা এক হাজার ৮৬০ কোটি মার্কিন ডলার খরচ হয় এইচপির। এরপর দীর্ঘদিন ধরেই তারা পিসি নির্মাতার শীর্ষস্থানটি দখল করে আছে।

HP কিনে নেয় Autonomy – পিসি নির্মাতা হিসেবে এইচপি তখনও ছিল শীর্ষস্থানে। তবে সফটওয়্যারের বাজারেও তারা নিজেদের অবস্থানকে শক্তিশালী করে তোলার চিন্তা করছিল। সেই চিন্তা থেকেই ২০১১ সালের আগস্টে ব্রিটিশ এন্টারপ্রাইজ সফটওয়্যার কোম্পানি অটোনমিকে কিনে নেয় এইচপি। আর এর জন্য ১০.২৪ বিলিয়ন ডলার বা এক হাজার ২৪ কোটি মার্কিন ডলার ব্যয় করতে হয় এইচপিকে।

Google কিনে নেয় Motorola – ২০১১ সালে এক সময়কার বিখ্যাত মোবাইল নির্মাতা মটোরোলার মোবাইল নির্মাণ ইউনিটকে কিনে নেয় Google । স্মার্টফোনের বাজারে অ্যাপলকে টেক্কা দিতেই Motorola মোবিলিটির দিকে হাত বাড়ায় গুগল। এর জন্য তাদের ব্যয় করতে হয় পাক্কা সাড়ে ১২ বিলিয়ন ডলার বা এক হাজার ২৫০ কোটি ডলার। পরে অবশ্য সাড়ে তিন বছরের মাথাতেই Motorola মোবিলিটিকে আবার গুগল বিক্রি করে দেয় Lenova এর কাছে ২.৯১ বিলিয়ন ডলার বা ২৯১ কোটি ডলারে।

Google কিনে নেয় NestLab –  ইন্টারনেটের প্রসারের সাথে সাথে স্মার্ট ডিভাইস ও স্মার্ট সিস্টেমের দিকে প্রযুক্তিবিশ্ব ঝুঁকে পড়তে থাকলে এসব প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করা বেশকিছু প্রতিষ্ঠানকেই কিনে নেয় গুগল। এর মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য কোম্পানিটির নাম NestLab । বেশকিছু Smarthome নিয়ে নেস্ট চমক জাগানো প্রযুক্তি বাজারে নিয়ে আসলে শেষ পর্যন্ত গুগল তাদের কিনে নেয় গত বছরের জানুয়ারিতে। এর জন্য গুগল ব্যয় করেছে ৩.২ বিলিয়ন বা ৩২০ কোটি মার্কিন ডলার।

Microsoft কিনে নেয় Skype এবং Nokia – Microsoft  ২০১১ সালে  ৮.৫ বিলিয়ন ডলার বা ৮৫০ কোটি ডলার দিয়ে Video এবং চ্যাটিংয়ে জনপ্রিয় মেসেঞ্জার  Skype কিনে নিয়ে সাড়া ফেলে দেয় প্রযুক্তিবিশ্বে।
বিকিকিনির তালিকায় Nokia আরেক চমক সৃষ্টি করে। Smartphone বাজার দখল করতে শুরু করার আগ পর্যন্ত Finland মোবাইল নকিয়াই ছিল মোবাইল নির্মাতার শীর্ষে। অ্যাপলের iPhone আর Android নির্ভর নানা ব্র্যান্ডের স্মার্টফোন এর ভীরে নকিয়া কখনই স্মার্টফোনের বাজারে সুবিধা করতে পারছিলনা তাদের উইন্ডোজ ফোন দিয়ে। ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বরে ৭.২ বিলিয়ন বা ৭২০ কোটি মার্কিন ডলারে Nokia বিক্রি হয়ে যায় মাইক্রোসফটের কাছে।

Apple কিনে নেয় Beats –  Macintosh সিস্টেমের পাশাপাশি iPhone আর iPAD অ্যাপলের মূল আকর্ষণের জায়গা ছিল। আইপড দিয়ে শুরু থেকেই সংগীতের জগতের সাথে যোগাযোগের সূত্র ধরে রেখেছিল Apple
এর সাথে iTunes যুক্ত হয়ে অনলাইন সংগীতের বাজারে অ্যাপলের অবস্থান ছিল গুরুত্বপূর্ণ। এই অবস্থানকে আরও শক্তিশালী করে তুলতে সংগীত জগতের আরেক সুপরিচিত নাম Beats কিনে নেয় Apple। ৩০০ কোটি ডলার খরচ করে Apple বিটসের অডিও স্ট্রিমিং সার্ভিস আর বিটসের বিশ্বমানের মিউজিক ডিভাইস—দুইটিকেই কাজে লাগানোর উদ্দেশ্য নিয়ে বিটসকে কিনে নেয়।

Google কিনে নেয় YouTube –  Paypal এরতিন সাবেক কর্মী ২০০৫ সালে তৈরি করে YouTube নামের Video Streaming সার্ভিস। YouTube এর যাত্রার এক বছরের মধ্যেই একে কিনে নেয় অনলাইন জায়ান্ট Google । আর এর জন্য গুগল তখনই খরচ করে ১.৬৫ বিলিয়ন ডলার বা ১৬৫ কোটি ডলার। ইউটিউবের আজকের যে জনপ্রিয়তা তৈরি হবে সময়ের সাথে, সেটা বোধহয় তখনই আঁচ করতে পেরেছিল গুগলের দুই প্রতিষ্ঠাতা Sergei Brine ও Larry page ।

এর বাইরেও বলতে হয় ভার্চুয়াল রিয়েলিটি (VR) হেডসেট নিয়ে কাজ করা Oculus  Rift এর কথা। Oculus Rift তাদের প্রথম VR হেডসেট বাজারে নিয়ে আসার আগেই একে ২০০ কোটি ডলারে কিনে নেয় সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয়তম ওয়েবসাইট Facebook । এদিকে ফেসবুকই আবার ২০১২ সালের এপ্রিলে ১০০ কোটি ডলার ব্যয় করে কিনেছিল ফটো শেয়ারিংয়ের অ্যাপ Instagram। আরেকদিকে জনপ্রিয় ব্লগিং প্ল্যাটফর্ম Tumbler  কে  Yahoo কিনে নেয় ১১০ কোটি ডলার দিয়ে। আবার ২০০২ সালে ১৫০ কোটি ডলার খরচ করে  Paypal কিনে নেয় eBay। তবে ২০১৪ সালে সিদ্ধান্ত হয় যে পেপ্যাল আবার পৃথক পাবলিক ট্রেডিং কোম্পানি হিসেবে কাজ করবে  এবং চলতি বছর থেকে তা কার্যকর হয়।

(Read More)

Editorial – Techmorich