Facebook এ সংযুক্ত হচ্ছে Dislike Button

09/20/2015

বিশ্বে সামাজিক যোগাযোগের সবচেয়ে বড় Social Media Platform ফেসবুকের লাইক বাটনের সর্বাধিক ব্যাবহার এর জনপ্রিয়তার কথা আমরা সবাই জানি। ২০০৯ সালে প্রথম ফেসবুকের লাইক বাটনটি যুক্ত হয়। কিন্তু ইউজারদের দাবী ছিল এর বিপরীতে ডিজলাইক বাটনের জন্য। লাইক বাটনের মাধ্যমে সব ধরনের মনোভাব প্রকাশ করা যায় না। কোন দুঃখের কিংবা দ্বিমত পোষণ করতে হলেও সেই লাইক বাটনকেই ক্লিক করতে হয়। যা প্রায়শই বিব্রতকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করে।

বেশ কয়েকবার প্রযুক্তি বাজারে এই ডিজলাইক বাটন যুক্তের গুজব শোনা গেলেও শেষ পর্যন্ত ফেসবুক দুরেই ছিল এই বাটনের সংযুক্ত থেকে। অবশেষে দীর্ঘ প্রতিক্ষার অবসান ঘটিয়ে এবার Dislike বাটনটি যুক্ত করতে চলেছে।

ফেসবুক হেডকোয়াটার থেকে এক প্রশ্নোত্তর সেশনে ফেসবুক Founder Mark Zuckerberg ডিজলাইক বাটনটি যুক্ত করার কথা জানিয়েছে।প্রশ্নত্তরের এক পর্যায়ে Mark জানায়, “অনেক বছর ধরেই ইউজাররা ডিজলাইক বাটনটি চালু করার জন্য বলে আসছে। আর তাদের সংখ্যাটি কম নয়! আজকের দিনটি তাদের জন্য নিঃসন্দেহে একটি আনন্দের দিন। কারন আজকে আমি তাদের উদ্দেশ্যে বলতে পারছি যে, আমরা ডিজলাইক বাটনটি নিয়ে কাজ শুরু করেছি এবং এর পরীক্ষামূলক ব্যাবহারের খুব কাছাকাছি চলে এসেছি।”
Mr Zuckerberg আরও বলেন : ‘We need to figure out the right way to do it so [the button] ends up being a force for good, not a force for bad’  এর ব্যাবহারের ব্যাখ্যা জানাতে গিয়ে জুকারবার্গ বলেন, কোন পোস্টকে অপছন্দ করার হাতিয়ার হিসেবে ডিজলাইক বাটনটিকে দেখতে চান না তিনি। বরং শোক সংবাদ বা দুঃখের কোন বিষয় যা খুব বেদনাদায়ক অনুভূতির বহিঃপ্রকাশমূলক যেসব পোস্টে লাইক ব্যাবহার করা অনেকের কাছেই যুক্তিযুক্ত নয়, সেসব পোস্টের ক্ষেত্রে সহমর্মিতা দেখানোর ক্ষেত্রে এই বাটনটির ব্যাবহার করার পক্ষে মত দেন তিনি।

Zuckerberg এর এই উদ্দেশ্য কতটা সফল হবে তা নিয়ে নানা আলোচনা সমালোচনা চলছে সামাজিক গণমাধ্যম এর গবেষকদের মধ্যে এবং Facebook ইউজারদের মধ্যে।

তাদের মধ্যে একজন Philadelphia  drexel university এর  বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক আন্দ্রিয়া ফোর্ট বলেন, “কোন পোস্টের সাথে দ্বিমত থাকলে বা মৃত্যুর মতো দুঃসংবামূলক কোন পোস্টে সমবেদনা জানাতে এর ব্যাবহার থাকবে। এর বাইরে অন্যের ব্যাক্তিগত বিভিন্ন পোস্ট অপছন্দ করতেও এর ব্যাবহার তৈরী হতেই পারে।”

Tech Analyst – Techmorich